• শিরোনাম

    হাজীগঞ্জের কৃতি সন্তান নাট্যকার ও পরিচালক প্রণব কুমার রায় সাহিত্য পদক লাভ

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৯ মে ২০২১ | ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

    হাজীগঞ্জের কৃতি সন্তান নাট্যকার ও পরিচালক প্রণব কুমার রায় সাহিত্য পদক লাভ

    “চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি দোনাগাজী পদক ২০২০”

    হাজিগঞ্জের কৃতি সন্তান এবং আমাদের গর্ব বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় মেধাবী লেখক, নাট্যকার ও পরিচালক প্রণব কুমার রায় “চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি দোনাগাজী পদক ২০২০” নাটকে বিশেষ অবদানের জন্য দোনাগাজী পদক-২০২০ সম্মাননা পেলেন।

    ১৯৮৭ সালে হাজিগঞ্জের এক সমভ্রান্ত মধ্যবিত্ত পরিবারে প্রণব কুমার রায়ের জন্ম। পিতা রতন চন্দ্র রায় ও মাতা ঝর্না রানী রায়ের ২য় সন্তান তিঁনি। খুব ছোটবেলা থেকে তিঁনি লেখালেখি শুরু করেন।

    webnewsdesign.com

    এত অল্প বয়সে তাঁর লেখালেখির কল্পনায় ছিলেন আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম(দুখু মিয়া), যাকে তিঁনি তার সাহিত্য গুরু ও সাহিত্যের প্রেরণা বলে মনে করেন। মাত্র ১১ বছর বয়সেই তিঁনি দতার সাথে ছড়া, কবিতা ও গল্প লিখতেন। ১৯৯৯ সালে তাঁর লেখা প্রথম ছড়া চাঁদপুর দর্পনে প্রকাশিত হয়।

    ২০০১ ও ২০০২ সালের দিকে তিঁনি বেশ কিছু ছোট গল্প আর “রাজলক্ষ্মী বিজয় দশমী” ও “বেহালা” শিরোনামে দুটি উপন্যাস রচনা করেন। ২০০৩ সালের শুরু থেকে তিঁনি গান লিখতে শুরু করেন, বর্তমানে তাঁর গানের সংখ্যা শতকের মাইলফলক স্পর্শ করেছে। প্রকাশিত কোন গান তাঁর না থাকলেও গানের কথা রচনা করে ২০০৮ সালে ‘তোমার দেয়া প্রিয় গিটার’ ‘কান্দিস না মন’ ও ‘অশ্রু লুকাতে পারিনি’ শিরোনামে গানের কথা দিয়ে বাংলার কিংবদন্তি শিল্পী জেমস ও পরে ২০১৪ সালে ‘শিহরন’ ও ‘অনুভবে’ শিরোনামে গানের কথা দিয়ে বাংলার রকস্টার লিভিংলিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চুসহ ও সংগীত পরিচালক রাজন সাহার প্রীতি ধন্য হয়েছিলেন।

    ২০০৪ সাল থেকে নিয়মিত উনিশকুডি ম্যাগাজিন সহ বিভিন্ন স্থানীয় পত্রপত্রিকায় লেখালেখি করেছিলেন। ২০০৭ সাথে তাঁর লেখা প্রথম কাব্যগ্রন্থ মা প্রকাশিত হয়। এরপর থেকে তিঁনি লেখালেখি আর সাহিত্য চর্চায় গতি পরিবর্তন করেন।
    যা ছিল তাঁর ভাষ্যমতে, লেখালেখিতে গভীর মনঃসংযোগ ও মান উন্নয়নের ছিল।

    ২০০৮ সালে তিঁনি “জীবনের রঙ বদল’ ২০০৯ সালে “শ্যামা” ২০১১ সালে “হৃদয়ের মৌন মিছিল” ২০১৪ সালে “সূর্যগ্রহণ” শিরোনামে আরো ৪ টি উপন্যাসসহ অসংখ্য কবিতা ও গল্প লিখেন। ২০১২ সাল থেকে প্রণব কুমার রায় নাট্যকার ও নাট্যনির্মাতা হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেন। তবে এর কয়েক বছর আগে থেকে তিঁনি নাট্যচর্চা করতেন।

    ২০১২ সালে তাঁর জীবনের প্রথম নাট্যরূপ “ছগির আলীর ভাঙ্গা টিভি” পরিচালক রুমান রুনির জন্য লিখেছিলেন। ২০১৩ সালে এলাকার বন্ধুদের নিয়ে এলাকা থেকে তাঁর নাট্যজগতের যাত্রা শুরু। পরে ২০১৪ সালে নাট্যকার ও নাট্যনির্মাতা হিসেবে নিজের স্বপ্নকে পূরন করার জন্য ঢাকায় আসেন। এবং একই সময়ে ২০১৪ সালের একুশে বই মেলায় সত্যকথা প্রকাশনীর ব্যানারে তাঁর ২য় গল্প গ্রন্থ “শিহরণ” প্রকাশিত হয়। যা অগণিত পাঠক ও ভক্তদের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছিল।

    ২০১৪ সাল থেকে ২০১৫ সাল অব্দি টানা ২ বছর ঢাকায় তিঁনি নাট্য নির্মাণসহ বেশ কিছু মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেন। সামাজিক সাবলীল গল্পনির্ভর, আদর্শিক, শিামূলক ও সমাজ সচেতনামূলক নাট্য নির্মাণই হলো প্রণব কুমার রায়ের গল্প ও নাট্যনির্মাণের প্রধান বৈশিষ্ট্য। যা প্রণব কুমার রায়কে একটা আলাদা অনন্য মর্যাদায় নিয়ে গেছে।

    প্রচলিত গধবাধা নিয়মের বাহির তাঁর মেধা ও চিন্তাশক্তির প্রকাশ ঘটিয়ে তিঁনি প্রতিটা কাজেই মৌলিকতার সার রেখে গেছেন। তাঁর রচিত ও পরিচালিত নাটক ও মিউজিক ভিডিও সমূহ হলো প্রহসন (নাটক ২০১৩) জানি তুমি আসবে না ফিরে (মিউজিক ভিডিও ২০১৩) অভিমান (নাটক ২০১৪) জেগে থাকা রাত (মিউজিক ভিডিও ২০১৪) আলো থেকে বহু দূর (মিউজিক ভিডিও ২০১৫) টিউশনি (নাটক ২০১৫) দালাল (নাটক ২০২০) মুকুট বিড়ম্বনা (নাটক ২০২০) ডুবে যদি যায় মন (মিউজিক ভিডিও ২০২০) ধারাবাহিক নাটক- গেরামের কিচ্ছা ২০২১। পুরস্কার (নাটক ২০২১)

    এছাড়াও অসংখ্য শিামূলক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচিত্র নির্মাণ করেন।
    উল্লেখ প্রণব কুমার রায়ের সর্বশেষ নাটক “পুরস্কার” ২০২১,
    যা আমাদের সমাজের এক নিদারুণ বাস্তবচিত্র আর সেই সাথে আমাদের বিকারগ্রস্ত মানুষিকতার পরিচয় তুলে ধরেছেন।

    এই নাটকের মাধ্যমে তিঁনি সমাজের এক শ্রেণি মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানো আশা ব্যক্ত করেন। তিঁনি মনে করেন, গল্প বা নাটক কেবল বিনোদন খোরাকই না। গল্প বা নাটক আমাদের জীবনে শিার সবচে সুন্দর একটা অধ্যায়।

    সেই সুশিা যদি গল্প বা নাটকে না থাকবে তবে তা আমাদের সমাজকে ক্রমশ বধির করে তুলবে। সাহিত্য ও চলচিত্র চর্চায় প্রণব কুমার রায়ের উদ্দেশ্য বাংলা সাহিত্য ও চলচিত্রকে বিশ্ব দরবারে এক অনন্য মাত্রা নিয়ে যাওয়া।
    প্রণব কুমার রায় একাধারে একজন কবি, কথাসাহিত্যিক, গল্পকার, উপন্যাসিক, গীতিকার, নাট্যকার ও পরিচালক।

    “চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি দোনাগাজী পদক ২০২০” নাটক বিভাগে সেরা নাট্যকার ও পরিচালক পুরস্কার দেওয়ায় আমরা তাঁকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

     

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
    বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে চাকরি
    বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে চাকরি