• শিরোনাম

    স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় পাঠ্যপুস্তক থেকে প্রশ্ন করার প্রস্তাব

    | ১০ নভেম্বর ২০১৭ | ৪:৫৩ পূর্বাহ্ণ

    স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় পাঠ্যপুস্তক থেকে প্রশ্ন করার প্রস্তাব

    স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় পাঠ্যপুস্তক থেকে প্রশ্ন করার প্রস্তাব

    স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় পাঠ্যপুস্তক থেকে প্রশ্ন করার প্রস্তাব

    স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) বই থেকেই প্রশ্ন প্রণয়ন করতে হবে। প্রথম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষায় পাঠ্যপুস্তকের বাইরে প্রশ্ন করা যাবে না। এমন প্রস্তাব এনে বেসরকারি স্কুলে ভর্তি নীতিমালা-২০১৭-এর খসড়া চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে অঞ্চলভিত্তিক ভর্তি ফি নির্ধারণ করা হয়েছে এই নীতিমালায়। তবে নীতিমালা লঙ্ঘন করলে শাস্তির কোনো বিধান রাখা হয়নি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

    সূত্র জানায়, ১২ নভেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সভায় এই খসড়ার অনুমোদন দেয়া হতে পারে।

    শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব সালমা জাহান বলেন, সব অভিভাবকই চান সন্তানকে ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি করতে। আসনের চেয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় অনেক স্কুল পাঠ্যবইয়ের বাইরে থেকে প্রশ্ন করে। ভর্তির সময় অভিভাবকরা পছন্দের স্কুলে চান্স পাওয়ার জন্য সন্তানকে ক্লাসের পড়া বাদ দিয়ে কোচিংয়ে ভর্তি করান। কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করতে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন পাঠ্যবই থেকে করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষকদের অনুরোধে ভর্তি ফরমের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

    webnewsdesign.com

    ওই খসড়ায় বেসরকারি স্কুল, স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নিম্ন মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, ভর্তি ফি একমাসের বেতনের সমান, ভর্তি হওয়া মাসের বেতন, বার্ষিক সেশনচার্জ, উন্নয়ন ও বিবিধ ফিসহ টিউশন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

    এক্ষেত্রে মফস্বল এলাকার এমপিওভুক্ত স্কুলে পাঁচশ, আংশিক এমপিওভুক্ত স্কুলে ছয়শ, এমপিওবিহীন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে সাতশ, এমপিওবিহীন ইংলিশ ভার্সন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে আটশ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

    পৌরসভা ও উপজেলা সদরের এমপিওভুক্ত স্কুলে এক হাজার, আংশিক এমপিওভুক্ত স্কুলে দেড় হাজার, এমপিওবিহীন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে আঠারশ, এমপিওবিহীন ইংলিশ ভার্সন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে দুই হাজার।

    জেলা শহেরর (পৌর সদর) এমপিওভুক্ত স্কুলে দুই হাজার, আংশিক এমপিওভুক্ত স্কুলে দুই হাজার দুইশত, এমপিওবিহীন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে আড়াই হাজার, এমপিওবিহীন ইংলিশ ভার্সন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে আড়াই হাজার।

    বিভাগীয় শহরের (ঢাকা ব্যতীত) এমপিওভুক্ত স্কুলে তিন হাজার, আংশিক এমপিওভুক্ত স্কুলে চার হাজার, এমপিওবিহীন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে সাড়ে চার হাজার, এমপিওবিহীন ইংলিশ ভার্সন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে সাড়ে চার হাজার টাকা।

    ঢাকা শহরের এমপিওভুক্ত স্কুলে পাঁচ হাজার, আংশিক এমপিওভুক্ত স্কুলে আট হাজার, এমপিওবিহীন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে ১০ হাজার, এমপিওবিহীন ইংলিশ ভার্সন (পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত) স্কুলে ১০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

    বিগত বছরের মতোই টিউশন ফি নির্ধারণ করা হলেও শুধু রাজধানীর এমপিওবিহীন স্কুলে দুই হাজার টাকা বাড়তি প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া সারাদেশে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি ফরমের দাম গত বছরের চেয়ে ৫০ টাকা বাড়িয়ে ২৫০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন