• শিরোনাম

    শক্তি ক্ষয় করতে চায় না বিএনপি

    | ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ

    শক্তি ক্ষয় করতে চায় না বিএনপি

    সর্বশক্তি নিয়ে প্রস্তুত ২ দল

    শক্তি ক্ষয় করতে চায় না বিএনপি

    অনলাইন ডেস্ক

    ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায়। সর্বশক্তি নিয়ে প্রস্তুত বিএনপি। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না করার নির্দেশ রয়েছে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি। কিন্তু সাজা হলে বদলে যেতে পারে পরিস্থিতি—এমন আশঙ্কাও আছে দলের মধ্যে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সম্পূর্ণ প্রস্তুত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও। কোনোভাবেই বিএনপিকে নাশকতা করতে দিতে নারাজ ক্ষমতাসীনরা। বিশৃঙ্খলাকারীদের ধরে পুলিশে দিতে মাঠে থাকবেন দলের নেতাকর্মীরা। এনিয়ে টান টান পরিস্থিতি দেশে। কী হয়—সেদিকে তাকিয়ে সবাই।

    জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা হতে পারে—এমন আশঙ্কা করছে বিএনপি। সে শঙ্কা থেকেই উদ্ভূত পরিস্থিতিতে রায়ের দিন ও পরবর্তী সময়ে সর্বশক্তি নিয়ে রাজধানীসহ সারা দেশে মাঠে নামার পরিকল্পনা নিয়েছে দলটি। যদিও মুখে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না করতে খালেদা জিয়ার নির্দেশের কথা বলা হচ্ছে; কিন্তু খালেদা জিয়ার সাজা হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে বলেও মনে করছেন দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়।

    দলীয় সূত্রগুলো বলছে, তৃণমূলের নেতারা রায়ের দিন সর্বোচ্চ শক্তি নিয়ে মাঠে নামতে চাচ্ছে। এজন্য কেন্দ্রের ওপর চাপ রেখেছেন তৃণমূল নেতারা। তাদের মতে, দল নির্দেশ না দিলেও কোথাও কোথাও তীব্র আন্দোলন হতে পারে। দলের নীতিনির্ধারণী সূত্র মতে, রায় বিপক্ষে গেলে সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা রাস্তায় নেবে আসবে। তবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত দলের শক্তি অক্ষুণ্ন রাখতে দলকে সহিংস পথে না গিয়ে নির্বাচন পর্যন্ত নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ রয়েছে।

    webnewsdesign.com

    এ ব্যাপারে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আগামী দিনের আন্দোলনের জন্য বিএনপি সর্বশক্তি নিয়ে প্রস্তুত রয়েছে। আমাদের কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ। কেউ যেন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করে সে ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এই নেতা এমনও বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে যদি অন্যায়ভাবে কোনো রায় চাপিয়ে দেয়া হয় তাহলে এদেশের জনগণের সেন্টিমেন্টের ওপর রায় দেয়া হবে। তাই এই রায় শুধু খালেদার বিরুদ্ধে রায় নয়। আমরা আগে থেকেই বলছি এই রায় যদি চাপিয়ে দেয়া হয় তাহলে এদেশের জনগণ তা গ্রহণ করবে না। ফলে এই রায়ের ওপর নির্ভর করবে দেশের রাজনীতির ভবিষ্যৎ।

    গত শনিবার দলের নির্বাহী কমিটির সভার উদ্ধৃতি দিয়ে দলের একাধিক শীর্ষ নেতা বলেছেন, ওই সভায় খালেদা জিয়া দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার ওপর জোর দিয়েছেন। একই সঙ্গে সরকারের ফাঁদে পা না দেওয়া, সহিংসতায় না জড়ানো, কোনো ধরনের হঠকারী সিদ্ধান্ত না নিতে নেতাকর্মীদের কঠোরভাবে সতর্ক করেছেন। নির্বাহী কমিটির সভার রুদ্ধদ্বার পর্বে সমাপনী বক্তব্যে খালেদা জিয়া নেতাদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি দল বিপদে পড়তে পারে এমন কোনো হঠকারী সিদ্ধান্ত না নিতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন।

    এদিকে খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি যেন মাঠে নামতে না পারে সেজন্য সরকারের বিরুদ্ধে রাজধানীসহ সারা দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের অভিযোগ করেছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। তবে পুলিশ বলেছে, এটি নিয়মিত অভিযান। অবশ্য ৩০ জানুয়ারি আদালতে হাজিরা শেষে ফেরার পথে খালেদা জিয়ার গাড়িবহরের পাশে পুলিশ ভ্যানে হামলা ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার আসামিদের ধরা হচ্ছে। গত পাঁচ দিনে দলের ৬ শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছেন বলে জানিয়েছেন রিজভী। তিনি অভিযোগ করেন, গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যেই শনিবার নির্বাহী পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের বাসায় বাসায় চলছে পুলিশি তল্লাশি। কার্যালয়গুলোও রয়েছে পুলিশের নজরদারিতে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গ্রেফতার এড়াতে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে চলাফেরা করছেন নেতাকর্মীরা। গ্রেফতার আতঙ্ক নিয়েই চলছে আগামী দিনের সম্ভাব্য আন্দোলনের প্রস্তুতি।

    বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, শনিবার নির্বাহী কমিটির বৈঠকে দলের যেকোনো বিপদ মোকাবিলায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকা এবং শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশনা দেন খালেদা জিয়া। কেউ হঠকারিতা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণেরও হুশিয়ারি দেন তিনি। তবে জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে ‘সরকার আঘাত করলে’ তার বিরুদ্ধে কঠোরভাবে মাঠে নামার ব্যাপারে চেয়ারপারসনকে আশ্বস্ত করেছেন তৃণমূলের নেতারা। দলের পক্ষ থেকে যেসব কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে তাতে সবাইকে মাঠে নামানোর পরামর্শ দেওয়া হয় সভা থেকে। বিশেষ করে আগামী দিনে ঢাকায় যেন সফল আন্দোলন গড়ে ওঠে সে ব্যাপারে বিশেষ নজর দেওয়ার কথা বলেন তৃণমূলের নেতারা।

    দলীয় সূত্র জানায়, রায়ের আগের দিন খালেদা জিয়ার সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে। তবে কখন, কোথায় সংবাদ সম্মেলন হবে তা জানা যায়নি। সংবাদ সম্মেলন থেকে খালেদা জিয়া দলীয় নেতাকর্মী, দেশবাসী, বিচারক, পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও প্রশাসন এবং সরকারের উদ্দেশে বক্তব্য রাখবেন। একই সঙ্গে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ থেকে দেশকে রক্ষার আহ্বান জানাবেন বলে জানা গেছে। রায়ের দিন ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া আদালতে উপস্থিত থাকবেন বলেও জানা গেছে। সেদিন নেতাকর্মীদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান থাকবে। কোনো ধরনের উসকানিতে পা দেবে না বিএনপি। গত রোববার রাতে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়।

    এ ব্যাপারে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেন, সম্পূর্ণ নির্দোষ বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে জাল নথির ওপর ভিত্তি করে অসত্য মামলায় ধারাবাহিক হয়রানি এবং হেনস্তার পর ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করছে জনগণ। এখানে সরকারের প্রতিশোধস্পৃহার প্রতিফলন ঘটে, নাকি ন্যায়বিচার হয়, সেটিই অবলোকন করার বিষয়। ন্যায়বিচার হলে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কোনো নেতিবাচক সিদ্ধান্ত হবে না।

    ২০০৮ সাল থেকে চলমান এ মামলার রায় আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি তারিখ ঘোষণা করেছেন পুরান ঢাকার বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসার মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত। তবে দেশের নিম্ন আদালত ‘সরকারের কব্জায়’ থাকায় সঠিক রায় দেওয়ার ক্ষমতা বিচারকদের নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এই মামলার রায়ে দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন সাজা হতে পারে খালেদা জিয়ার।

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন