• শিরোনাম

    রোহিঙ্গাদের ইস্যুতে সরকারকে কূটনৈতিক ভাবে এগোতে হবে

    | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৬:৪১ অপরাহ্ণ

    রোহিঙ্গাদের ইস্যুতে সরকারকে কূটনৈতিক ভাবে এগোতে হবে

    মিয়ানমারকে গণহত্যা বন্ধ করতে হবে। প্রাণ ভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সেই দেশে ফেরত নিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ৫০টি রাষ্ট্রকে লিখিত চিঠি দিয়েছেন। এই ধরণের হত্যাকান্ড বন্ধের আহবান জানিয়েছেন। বাংলাদেশ ছোট হতে পারে। সম্পদ কম হতে পারে। তবে বাংলাদেশ যে কোন ঘটনায় এক হতে পারে, কেউ আমাদের দমিয়ে রাখতে পারে না রোহিঙ্গাদের সমস্যার দিকে তাকালেই সেটা বুঝা যায়। এসব কথা বলেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান। বলেন, রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে সরকারকে কূটনৈতিক ভাবে এগিয়ে যেতে হবে এবং ফলো করতে হবে ১৯৭৮ সালে জিয়াউর রহামনের চুক্তি ও ১৯৯২সালে খালেদা জিয়ার করা চুক্তি। তাহলেই এসকল রোহিঙ্গাদের হত্যাকন্ড বন্ধ হবে এবং আমাদের দেশে আসা রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত পাঠানো সম্ভব।
    সম্প্রতি কক্সবাজারের একটি হোটেলে দেয়া সাক্ষাতকারে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কথা বলেন বিএনপি নেতা মোহাম্মদ শাহজাহান। সাক্ষাতকারটি নিয়েছেন প্রতিবেদক মাঈন উদ্দিন আরিফ।

    প্রশ্ন: রোহিঙ্গাদের ত্রাণ কার্যক্রমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নামছে, এতে রোহিঙ্গা সমস্যা কতটুকু লাঘব বলে আপনি মনে করছেন?

    শাহজাহান: বাংলাদেশ সেনা বাহিনী ইতিমধ্যে যত কাজ করেছে সবগুলো আন্তরিকতার সঙ্গে করেছে এবং সবগুলোতে সফল হয়েছে। আমি আশা করছি সেনাবাহিনী সফল ভাবে রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বিতরণ এবং পূর্ণবাসন করতে পারবে।

    webnewsdesign.com

    প্রশ্ন : মিয়ানমার বাংলাদেশের আকাশসীমা একাধিক বার লঙ্ঘন করেছে, এটা আপনি কি ভাবে দেখেছেন?

    শাহজাহান: সরকার এটার প্রতিবাদ জানিয়েছে। কিন্তু এরপরেও তারা আমাদের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে। এটার জন্য সরকারকে কঠিন ভাবে জবাব দিতে হবে। কারণ এটা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের বিষয়।

    প্রশ্ন: রোহিঙ্গা ইস্যুতে আপনার পর্যবেক্ষণ কি?

    শাহজাহান: বাংলাদেশের মানুষ যে কত মানবিক রোহিঙ্গা সমস্যা তার একটা বড় প্রমাণ। আমাদের দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ত্রাণ নিয়ে এসেছে সরকারের বাঁধার কারণে সেটা দিতে তারা সক্ষম হয়নি। কিন্তু সরকারের উচিত ছিল আমাদের নেতাদের সহায়তা করা। আমি একটা ম্যাসেজ পেয়েছি আমাদের বিরোধীদলগুলোকে ত্রাণ কার্যক্রম চালাতে দেওয়া হবে না। তার পরেও বিভিন্ন ভাবে ব্যানার টাঙ্গিয়ে আবার ব্যানার না টাঙ্গি আমরা রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।

    প্রশ্ন: রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ প্রসঙ্গে কিছু বলুন?

    শাহজাহান: কতটুকু হয়েছে আমি কিছু বলতে চাই না ত্রাণ বিতরণ নিয়ে। আমি শুধু বলবো রোহিঙ্গাদের দুঃখ কষ্ট দেশের মানুষের হৃদয় স্পর্শ করেছে। আর তারা মুসলিম, তাই মুসলিম দৃষ্টান্তে হোক আর যাই হোক সবাই এগিয়ে এসেছে। বিভিন্ন সংস্থা, মসজিদ কমিটি, ব্যক্তি উদ্দ্যোগ, সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠন-সহ দেশী বিদেশি সংগঠনগুলো রোহিঙ্গাদের মাঝে এগিয়ে ত্রাণ তৎপরতা চালিয়েছে। যা একটা নজির সৃষ্টি করার মতো।

    প্রশ্ন: রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত পাঠানো কতটুকু সম্ভব?

    শাহজাহান: রোহিঙ্গা জাতী গোষ্ঠির উপর মিয়ানমারের এ নির্যাতন নতুন নয়। ১৯১৮ সালে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন চালানো হয়েছে। কিন্তু জিয়াউর রহমান এটাকে বন্ধ করেছে এবং রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত নিতে বাধ্য করেছে সেই দেশের সরকারকে। ১৯৯২ সালেও একই ঘটনা ঘটেছে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সফল ভাবে এই হত্যা বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত নিতে বাধ্য করেছে মিয়ানমারকে এবং চুক্তিও হয়েছে। বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার সেই সকল চুক্তিগুলো ফলো করলেই সম্প্রতি আসা অসহায় রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে পারবে।

    প্রশ্ন: রোহিঙ্গা নিয়ে বিএনপির ভাবনা কি?

    শাহজাহান: রোহিঙ্গা নিয়ে বিএনপির ভাবনা হলো তারা যেন ভালো থাকে, শান্তিতে থাকে। শুধু তারা নয়, বিএনপি চায় সারা দেশের মানুষ ভালো থাকুক। রোহিঙ্গারা যেন এরকম বারবার নির্যাতনের আর কোন শিকার না হয়। আমাদের দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সবার আগে এ রোহিঙ্গাদের নিয়ে কথা বলেছে এবং কি সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন, তাদেরকে আমদের দেশে সাময়িক ভাবে আশ্রয় দেওয়ার জন্য। এ হত্যা অমানবিক। এটা বন্ধ করতে মিয়ানমার সরকারকে বাধ্য করতে।

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
    যুবলীগে স্থান পাবে ত্যাগী নেতারা – কেন্দ্রীয় সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল
    যুবলীগে স্থান পাবে ত্যাগী নেতারা – কেন্দ্রীয় সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল