• শিরোনাম

    মায়ের মৃত্যুর ২৭ দিন পর শিশু জুবায়ের মৃত্যু

    | ১৪ অক্টোবর ২০১৭ | ৩:২২ অপরাহ্ণ

    মায়ের মৃত্যুর ২৭ দিন পর শিশু জুবায়ের মৃত্যু

    মায়ের মৃত্যুর ২৭ দিন পর শিশু জুবায়ের মৃত্যু
    নিজস্ব প্রতিবেদক॥
    হাজীগঞ্জে মায়ের মৃত্যুর ২৭ দিন পর মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে প্রাণ গেলো দুই মাসের দুধের শিশু জুবায়েরের। ১৩ অক্টোবর শুক্রবার মধ্যরাতে শিশু জুবায়ের পৌর এলাকার মনির হোসেনের ঘরে ২৭ দিন আশ্রয় থাকা অবস্থায় মৃত্যুর কোলে ডলে পড়ে বলে জানা যায়। এর আগে গত ২৪ সেপ্টেম্বর হাজীগঞ্জ পৌরসভার ১১নং ওয়ার্ড বেপারী বাড়ী থেকে দুই মাসের কোলের শিশু জুবায়েরের পাশ থেকে মা জান্নাত বেগম (১৯) এর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গৃহবধু জান্নাতের ময়না তদন্ত রির্পোট পুলিশের হাতে এখনো আসেনি। এরই মধ্যে জান্নাতের রেখে যাওয়া দুই মাসের শিশু জুবায়েরও অকালে প্রাণ হারাতে হলো। মা ও সন্তানের মৃত্যু নিয়ে হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
    উল্লেখ্য, গত দুই বছর পূর্বে উপজেলার কালচোঁ দক্ষিন ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস (১৯) এর সাথে বিয়ে হয় পৌর এলাকার রান্ধুনীমুড়া বেপারী বাড়ীর মো.রানা মিয়ার সাথে। বিয়ের সময় রানাকে সিএনজি কিনার জন্য নগদ দুই লক্ষ টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণসহ জাবতীয় মালামাল দিয়ে সাজিয়ে দেয় জান্নাতের পরিবার। কিন্তু রানা পূর্বেও যৌতুকের জন্য আরেকটি বউ বিদায় করেছে তা জানতেন না জান্নাতের পরিবার। তার পরেও মেয়ের সুখের দিকে লক্ষ রেখে বিভিন্ন সময়ে সার্বিক সহযোগিতা করে আসছিল জান্নাতের পরিবার। বিয়ের কিছু দিন পর দেখা যায় জামাই রানা সিএনজি না কিনে উক্ত টাকা নেশা করে উড়ে ফেলেছে। পরবর্তীতে টাকার জন্য কয়েকবার স্ত্রী জান্নাতকে বাপের বাড়ীতে পাঠায়। এ ভাবে নেশাখর জামাই রানার অত্যাচার বেড়ে যাওয়া গৃহবধু কয়েক মাস বাপের বাড়ীতে অবস্থান নেয়। এরই মধ্যে তাদের ঘর আলোকিত করে সংস্বারে আসলো শিশু জুবায়ের। হাজীগঞ্জ সেন্টাল হাসপাতালে সিজারে শিশু জুবায়ের জন্ম নেয়। সেখানে এক সপ্তাহে প্রায় ৫০ হাজার টাকা বিল পরিষদ করে জান্নাতের পরিবার। কিন্তু নেশাখোর জামাই শিশুর খবর নেওয়াতো দূরে থাক পুনরায় জান্নাতের পরিবারের কাছ থেকে টাকা দাবি করে। জান্নাতের পরিবার কিছু টাকা নিয়ে মেয়েকে স্বামীর বাড়ীতে পাঠায়। কিন্তু দুই দিন না যেতে পূনরায় অতিতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নেশাখোর জামাই রানা গভীর রাতে বাসায় এসে স্ত্রী জান্নাতকে এলোপাতাড়ী মারধর শুরু করে। পরে দিন ২৪ সেপ্টেম্বর রবিবার সকালে দুই মাসের কোলের শিশুর পাশ থেকে গৃহবধু জান্নাতের লাশ উদ্ধার করে হাজীগঞ্জ থানার এস আই বলাই দেবনার্থ।
    ওই সময়ে রানার পরিবার পুলিশের কাছে জবান বন্ধী দেয় জান্নাত গলায় ফাঁশ দিয়েছে এবং রশি কেটে খাটের উপর শুয়ে রেখেছে। পরে পুলিশ লাশ ময়না তদন্তের জন্য চাঁদপুর প্রেরন শেষে জান্নাতের বাপের বাড়ীতে পারিবারিক কবরের স্থানে দাফন সম্পন্ন করে।
    এদিকে দুই মাসের কোলের শিশু জুবায়েরের দায়িত্ব নিয়ে অবহেলার অভিযোগে জান্নাতের মা পারুল বেগম তার কাছে নিয়ে আসে। কিন্তু বুকের দুধের অভাবে শিশুটির অবস্থা খারাপ পরিশ্চিতি দেখা দেওয়ায় হাজীগঞ্জ ও চাঁদপুরের বিভিন্ন পাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে পৌর ৪নং ওয়ার্ড কাশারী বাড়ীর মনির হোসেনের ঘরে শিশুটির খালা সালমা বেগমের কাছে আশ্রয় নেয়।
    এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাবেদুল ইসলাম বলেন, গৃহবধু জান্নাতের রেখে যাওয়া দুই মাসের শিশু জুবায়েরের মৃত্যুর ঘটনা শুনে পৌর এলাকার কাশারী বাড়ীর মনির হোসেনের ঘরে যাই। সেখানে শিশু জুবায়েরের নানু পারুল বেগম ও খালা সালমা বেগম এর সাথে কথা বলে শিশুটির লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর প্রেরণ করেছি। শিশুটির মা জান্নাত বেগমের ময়নাতদন্ত রির্পোটও এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে আসেনি। রির্পোটের আলোকে আমরা আইনগত ব্যবস্থা জোরদার করবো।

     

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন