• শিরোনাম

    নতুন বছরের প্রত্যাশা—সম্পাদক ও প্রকাশক এনায়েত মজুমদার

    | ০১ জানুয়ারি ২০১৮ | ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ

    নতুন বছরের প্রত্যাশা—সম্পাদক ও প্রকাশক এনায়েত মজুমদার

    নতুন বছরের প্রত্যাশা

    সম্পাদক ও প্রকাশক এনায়েত মজুমদার

    কালের পরিক্রমায় বিদায় নিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে আরো একটি নতুন বছর। বিদায়ী বছরের হতাশা ও বঞ্চনাকে পেছনে ফেলে ভালো কিছু প্রাপ্তির আশা নিয়ে বিশ্ববাসী বরণ করবে নতুন বছরকে। বৈশ্বিক রাজনীতির নানাবিধ অনিশ্চয়তার মধ্যে নতুন বছরের আগমন।

    তাই প্রত্যাশার পারদে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। কামনা করি, সব ধরনের স্থবিরতা কাটিয়ে নতুন বছর সবার জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল আনন্দ। দেশে ফিরে আসুক শান্তি, সমৃদ্ধি, স্বস্তি ও গতিময়তা।
    বস্তুত একটি বছরের বিদায় ও আরেকটি বছরের আগমনে প্রত্যেক বিবেক-বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষের কর্তব্য হলো অতীত জীবন নিয়ে চিন্তা-ভাবনা তথা আত্মসমালোচনা ও অনুশোচনার মাধ্যমে জীবনের হিসাব-নিকাশ পর্যালোচনা করা।

    webnewsdesign.com

    তাই বছর শেষে আমাদের হিসাব করে দেখতে হবে, কেমন ছিল গত বছরে আমার আমলনামা। যদি যথেষ্ট পরিমাণ নেক আমল করে থাকি, তাহলে আলহামদুলিল্লাহ; আল্লাহতায়ালা তা কবুল করে নিন। ভবিষ্যতে তা অক্ষুণœ রাখুন এবং আরো বেশি নেক আমল করার তওফিক দিন।
    আর যদি মনে হয়, অবস্থা তার উল্টো, গুনাহর পরিমাণ বেশি। তাহলে বছর শেষে আল্লাহর কাছে অনুতপ্ত হয়ে তওবা-ইস্তেগফারের পাশাপাশি পুরনো পথে ফিরে না যাওয়ার পরিকল্পনা করা উচিত। মানবজীবনে ভালো-মন্দের হিসাব গ্রহণ ও ভবিষ্যৎ জীবনের নতুন সংকল্প ভীষণ জরুরি। কারণ প্রতিটি রাত-দিন, সপ্তাহ, মাস, বছরের আগমন ও প্রস্থান এ সম্পর্কে আমাদের সচেতন করে। এ প্রসঙ্গে কোরআনে কারিমে আল্লাহতায়ালা তাগিদ দিয়েছেন।

    ইরশাদ হয়েছে, ‘তিনি সেই সত্তা যিনি দিন ও রাতকে পরস্পরের অনুগামী করে সৃষ্টি করেছেন। (কিন্তু এসব বিষয় উপকারে আসে কেবল) সেই ব্যক্তির জন্য যে উপদেশ গ্রহণ করতে ইচ্ছা রাখে কিংবা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করতে চায়।’-সূরা ফুরকান : ৬২
    মানুষ হিসেবে আমরা খুবই আত্মভোলা। তাই আমরা বিদায়ী দিনগুলোর কথা খুব একটা ভাবি না। অতীতের হিসাবের খাতা উল্টে দেখতে চাই না। উটপাখির মতো মুখবুজে অতীতকে ভুলে থাকতে বেশি পছন্দ করি। তদ্রƒপ ভবিষ্যৎ সম্পর্কেও উদাসীন থাকি।

    ফলে আমাদের জীবন ফলপ্রসূ হয়ে ওঠে না। অথচ নতুন বছরকে সুন্দর, উন্নত ও সমৃদ্ধ করার জন্য অতীত জীবনের হিসাব-নিকাশ অত্যন্ত জরুরি। সুন্দর ও সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ বিনির্মাণের জন্য আত্মসমালোচনা ও অনুশোচনা প্রয়োজন। মুসলমান হিসেবে এটা করতে না পারা আমাদের জন্য বেশ লজ্জাকর বিষয়ই বটে।
    ইসলামের দৃষ্টিতে একটি বছরের বিদায় ও আরেকটি নতুন বছরের আগমনের মধ্যে প্রকৃত মুমিনের জন্য রয়েছে চিন্তার খোরাক। আমাদের চিন্তা করতে হবে, এভাবেই তো আমাদের জীবন থেকে খসে পড়ছে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর। এভাবেই একদিন নিভে যাবে জীবন প্রদীপ। যেদিন আমার যাত্রা শুরু পরকালের তরে, আমি পাড়ি দিতে পারব তো আখেরাতের সেই কঠিন ঘাঁটিগুলো? আমার সঞ্চয় কি যথেষ্ট?
    একবার হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) খুতবা দিচ্ছিলেন। খুতবায় তিনি যা বলছিলেন তার মর্মার্থ হচ্ছে, ‘হে জনতা! তোমাদের জীবন তরীতে রয়েছে কিছু মাইলফলক, সে মাইলফলকগুলো তোমাদের অতিক্রম করতে হবে। এভাবে তোমাদের রয়েছে একটি শেষ মঞ্জিল। সেখানেই ঘটে যাবে সবকিছুর ইতি। মুমিন মূলত দুটি আশঙ্কার মাঝে বসবাস করে। একটি আশঙ্কা হচ্ছে, গত জীবন। সে জানে না, সেখানে আল্লাহ তার জন্য কী লিখে রেখেছেন। তাই প্রত্যেক মানুষ নিজের জীবন থেকেই নিজের জন্য পাথেয় জোগাড় করুক। দুনিয়া থেকেই আখেরাতের সম্বল হাসিল করুক। বুড়ো হওয়ার আগে যৌবন ও সুস্বাস্থ্যকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করুক। সর্বোপরি মৃত্যু আসার আগে জীবনের সদ্ব্যবহার করুক।
    হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) আরেক হাদিসে ইরশাদ করেন, ‘পাঁচটি বিষয়কে অন্য পাঁচটি বিষয় গ্রাস করার পূর্বে তার সদ্ব্যবহার করো। তোমার যৌবনকালকে বার্ধক্য আসার পূর্বে, তোমার সুস্বাস্থ্যকে অসুস্থতা আসার পূর্বে, সর্বোপরি তোমার জীবনকে মৃত্যু আসার পূর্বে।’
    অতএব আসুন এই নিয়ামতগুলো হারানোর আগেই আমরা সেগুলোর সদ্ব্যবহার করি। ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হজরত ওমর (রা.) বলেছেন, ‘হে মানুষ! তোমার হিসাব চাওয়ার আগে নিজেই নিজের হিসাব খতিয়ে দেখ! দাঁড়িপাল্লায় তোমার (ভালো-মন্দ) আমলের ওজন করার পূর্বে নিজের আমল ওজন করে দেখো। আল্লাহর দরবারে চূড়ান্তভাবে নিজেকে পেশ করার প্রস্তুতি গ্রহণ করো। এরপর তিনি তেলাওয়াত করেন, ‘ওইদিন তোমাদেরকে পেশ করা হবে (আল্লাহর সম্মুখে) তোমাদের কোনো গোপনীয়তাই গোপন থাকবে না।’Ñসূরা আল হাক্বাহ : ১৮
    এই আয়াতের আলোকে বলা যায়, মুসলমানের জীবনের প্রতিটি মুহূর্তই পরম মূল্যবান হীরকখন্ড। সে প্রতি মুহূর্ত আল্লাহর আনুগত্যে ব্যয় করে আখেরাতের পাথেয় সঞ্চয় করবে। আমাদের মনে রাখতে হবে, ইসলাম কেবল কিছু আচার-অনুষ্ঠানের নাম নয়, বরং তা মানুষের পুরো জীবনকে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নির্দেশ অনুযায়ী বিন্যস্ত ও সজ্জিত করতে উপদেশ দেয়। সেজন্য মুসলিম জাতির আনন্দ-উৎসব আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণ ও অশ্লীলতায় নিহিত নয়, বরং আল্লাহর নির্দেশ পালন ও নিষেধ থেকে বিরত থাকার মাঝেই নিহিত। তাই তাদের প্রতিটি কাজের মাঝে জড়িয়ে থাকবেÑআল্লাহর আদেশ-নিষেধের সীমারেখা।

    মানবজীবনের সময়গুলো অত্যন্ত মূল্যবান। প্রতিটি মুহূর্ত আখেরাতের বিশাল জিন্দেগির জন্য পাথেয় তৈরির এক অপূর্ব সুযোগ। হাদিসে আছে, ‘সে-ই বুদ্ধিমান যে নিজের হিসাব কষে ও পরকালের জন্য তৈরি হয়।’ আর একজন সচেতন মুসলমানের গুণাবলির মাঝে রয়েছে, তার ধর্মীয় মূল্যবোধ, আখেরাতের প্রতি অবিচল বিশ্বাস, আল্লাহর প্রতি ভয় ও ভালোবাসা, ঐক্য, জাতীয়তাবোধ, আত্মত্যাগ, দেশপ্রেম, দায়িত্ববোধ এবং দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রেরণা। আদর্শ নাগরিকের এ গুণগুলোকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। তাই নতুন বছরের সূচনালগ্নে সবার কাছে প্রত্যাশাÑআসুন, পুরনো বছরের হিংসা, বিদ্বেষ, শত্রুতা, হানাহানি ভুলে নতুন বছরে নিজেকে নতুনভাবে গড়ে তুলি। পুরনো বছরের পাপগুলো হিসাব করে মহান আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই। আর নতুন বছরে পুরনো পাপগুলো দ্বিতীয়বার না করার দৃঢ় সংকল্প করি। কারণ, দৃঢ় সংকল্প জীবনবোধ ও চিন্তার জগতে পরিবর্তন আনতে বাধ্য।

     

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    চাঁদপুরসহ ২২ জেলায় নতুন ডিসি

    ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

    ভূয়া কবিরাজের কারিশমা‘

    ১৭ জানুয়ারি ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
    ১৮ মার্চ দ্বিতীয় ধাপে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, কচুয়া, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ, সদর, ফরিদগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাচন
    ১৮ মার্চ দ্বিতীয় ধাপে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, কচুয়া, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ, সদর, ফরিদগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাচন