গোপন প্রেম, বিয়ে ও সন্তান হওয়ার খবর নিয়ে চলতি বছরের এপ্রিলে দেশের গণমাধ্যমে রীতিমত তোলপাড় তুলেছিলেন শাকিব-অপু দম্পতি। বছর শেষে ফের তোলপাড় সৃষ্টি করলেন তারা। তবে এবার ডিভোর্সের খবর নিয়ে। বিষয়টি আর এখন কারো অজানা নয়। শাকিব-অপুর ডিভোর্সের ব্যাপারে আর কারো কোনো প্রশ্ন নেই। সবকিছু জলের মতো পরিস্কার। খুব শিগগির আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদ হতে যাচ্ছে তাদের।

তবে বেশকিছু বিষয় নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। এরমধ্যে প্রধান বিতর্ক এবার তাদের ‘দেনমোহর’ নিয়ে।

শাকিবকে ভালোবেসে ধর্মান্তরিত হয়ে ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল(মতান্তরে ১৬ মার্চ) গোপনে বিয়ে করেন অপু বিশ্বাস। কাগজে পত্রে নাম পরিবর্তন করে রাখেন অপু ইসলাম খান। মুসলিম শরীয়াহ মোতাবেক বিয়ে হয় তাদের। দেনমোহর দিয়েই অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করেন শাকিব। ডিভোর্সের এই পর্যায়ে এবার তাদের এই ‘দেনমোহর’ নিয়েই শুরু হয়েছে বিতর্ক।

webnewsdesign.com

এতোদিন দেনমোহরের কথা না উঠলেও এবার শাকিব-অপুর ডিভোর্সের বিষয়টি যখন প্রায় নিশ্চিত তখন অপু ও শাকিবের মধ্যে ‘দেনমোহর’-এর অর্থের পরিমাণ নিয়ে শুরু হয়েছে দ্বন্দ্ব। দেন মোহরের অর্থের পরিমাণ নিয়ে শাকিব বলছেন এক কথা, আবার অপু বিশ্বাস বলছেন আরেক কথা। আসলে শাকিব-অপুর বিয়েতে দেনমোহরের পরিমাণ কতো ছিল?

অপুর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ এনে তাকে ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শাকিব। শিগগির বিচ্ছেদ করতে চান তিনি। অপু বিশ্বাস যদিও প্রথমে বিচ্ছেদের খবরে বিস্মিত হয়েছিলেন, এবং এই ডিভোর্স মেনে না নেয়ার কথাও বলেন। কিন্তু যখন দেখলেন বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তে শাকিব অনড় তখন অপু বিশ্বাসও কষ্ট বুকে চেপে ডিভোর্স মেনে নেয়ার সিদ্ধান্তই নিলেন। কিন্তু ‘দেনমোহর’-এর অর্থের পরিমাণ নিয়ে নতুন করে শাকিব-অপুর শুরু হল মতানৈক্য।

কেননা, দেনমোহর-এর পরিমাণ শাকিব বলছেন সাত লাখ এক টাকা, অন্যদিকে অপু বলছেন দেনমোহরের পরিমাণ ছিলো ১ কোটি সাত লাখ টাকা! অর্থের দিক দিয়ে যা আকাশ-পাতাল ব্যবধান। প্রশ্ন উঠছে, দেনমোহর নিয়ে অসত্য উচ্চারণ কে করছেন? শাকিব না অপু?

এ ব্যাপারে শাকিব খানের আইনজীবী সিরাজুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে চলমান ‘দেনমোহর’ বিতর্কে তিনি শনিবার দুপুরে চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, সাত লাখ এক টাকার দেনমোহর দিয়ে অপুকে বিয়ে করেছেন শাকিব খান। ডিভোর্স হলে সে টাকা তিনি অপুকে দিয়ে দিতে প্রস্তুত। এমনটাই তিনি আমাকে জানিয়েছেন। কিন্তু অপু বিশ্বাস এখন যে ‘এক কোটি সাত লাখ’ টাকা দেনমোহর হিসেবে দাবী করছেন এ ব্যাপারে আমার কিছু জানা নেই। প্রমাণ আছে কিনা এটাও জানি না।

কিন্তু সাত লাখ এক টাকা যে তাদের দেনমোহর ছিল এ ব্যাপারে শাকিব খান কি কাগজে কলমে আপনাদের কোনো প্রমাণ দেখিয়েছেন?-এমন প্রশ্নে আইজীবী জানান, না। এমন প্রমাণ দেখাননি। দেনমোহরের কোনো কাগজপত্র আমি দেখেনি। মৌখিকভাবে বলেছে।

কিন্তু এখন যেহেতু এই বিষয়টি নিয়ে তর্ক, বিতর্ক হচ্ছে সেক্ষেত্রেতো কাগজে কলমের প্রমাণটাই বিবেচ্য হবে? অপু যদি ‘এক কোটি সাত লাখ’ টাকা দেনমোহরের কোনো হলফনামা দেখাতে পারে, তখন?-এমন প্রশ্নে শাকিবের আইনজীবী বলেন, শুধু অপু বিশ্বাস নয়, এক্ষেত্রে যিনিই আদালতকে এমন প্রমাণ দিতে পারবেন সুষ্ঠু বিচার তার দিকেই যাবে। আর এগুলো শাকিব-অপুর নিজস্ব ব্যাপার।

শাকিব খানতো এখন একটি সিনেমার শুটিংয়ে ভারতে আছেন। ডিভোর্স নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ার পর আপনার সঙ্গে শাকিব খান যোগাযোগ করেছেন কিনা জানতে চাইলে সিরাজুল ইসলাম বলেন, হ্যাঁ। যোগাযোগ হয়েছে। শাকিব সাহেবকেতো আমি আঙ্কেল ডাকি। তিনি আমাকে এককভাবে তাদের ডিভোর্স নিয়ে কোথাও কোনো সাক্ষাৎকার না দেয়ার জন্য বলেছেন।