• শিরোনাম

    তেলাপিয়া কেন জাপান ও থাইল্যান্ডের বন্ধুত্বের প্রতীক

    | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৬:০৬ অপরাহ্ণ

    তেলাপিয়া কেন জাপান ও থাইল্যান্ডের বন্ধুত্বের প্রতীক

    অনলাইন ডেস্ক ॥ ১৯৬৪ সালে জাপানের ক্রাউন প্রিন্স আকিহিতো থাইল্যান্ড সফরের সময় জানতে পারেন থাই রাজা এমন এক প্রজাতির মাছ চাচ্ছেন যা তার দেশের গ্রামাঞ্চলে অপুষ্টি দ্রুত দূর করতে পারে। জাপানের মেরিন বায়োলজিস্ট থন থামারনগনওয়াত তেলাপিয়া মাছটির প্রজাতি সংগ্রহ করেছিলেন আফ্রিকার নীল নদী থেকে এবং এ মাছটি দ্রুত বেড়ে ওঠে ও পুষ্টির উৎস বটে।

    ১৯৬৫ সালে ৫০টি তেলাপিয়া জাপান থেকে থাইল্যান্ডে এসে পৌঁছে যার প্রতিটি ছিল ৯ সেন্টিমিটার লম্বা ও ওজন ১৪ গ্রাম। কিন্তু পরিবহনের সময় ৪০টি মাছ মারা যায়। বাকি ১০টি মাছ থাই রাজার বাড়ির পুকুরে ছাড়া হয়। এরপর ওই পুকুর থেকে ১০ হাজার তেলাপিয়া পোনা সারা থাইল্যান্ডে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। থাই ভাষায় মাছটির নাম রাখা হয় ‘প্লা নিল’। মাছটির ইংরেজি নাম ‘নাইলোটিকা’।

    থাইল্যান্ডে প্রতিবছর ২ লাখ ২০ হাজার টন তেলাপিয়া মাছ উৎপাদন করে। দেশটির ৩ লাখ খামারে মাছটির চাষ হয়। সারাবিশ্বে তেলাপিয়া মাছটি সবচেয়ে বেশি রফতানি করে থাইল্যান্ড। আয় করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা। একটি মাছ দুটি দেশের মানুষকে কিভাবে কাছে নিয়ে এসেছে এই হচ্ছে সেই গল্প।

    webnewsdesign.com

    ক্রাউন প্রিন্স আকিহিতো এবং প্রিন্সেস মিকিকো ১৯৮৯ সালে ক্রিসেন্টহাম সিংহাসনে আরোহন করার পর তারা প্রথমবার যে দেশটি সফরের জন্যে বেছে নেন, সেটি হচ্ছে থাইল্যান্ড। দি ন্যাশন

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন