• শিরোনাম

    ‘তৃতীয় ব্যক্তির কারণে ঘর ভেঙ্গেছে- এটা মিথ্যা’ (ভিডিও)

    | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৬:৩৯ অপরাহ্ণ

    ‘তৃতীয় ব্যক্তির কারণে ঘর ভেঙ্গেছে- এটা মিথ্যা’ (ভিডিও)

    ডেস্ক রিপোর্ট : অর্চিতা স্পর্শীয়া, তার সঙ্গে অনেকদিন ধরেই এ নিয়ে কথা হচ্ছে আমার। কিন্তু তার ব্যস্ততায় সেটা হচ্ছিলো না। ‘আবাসিক হোটেল’ ওয়েব সিরিজ নিয়ে আমার একটা লেখা দেখে স্পর্শীয়া বললেন, এইবার ঢাকা এসেই উই উইল টক। তখন স্পর্শীয়া আন্দামান দ্বীপের ট্যুর শেষ করে ছিলেন কলকাতায়।

    ২১ সেপ্টেম্বর ‘আবাসিক হোটেল’ প্রসঙ্গ, তার ব্যক্তিজীবনের নানা টানাপড়েন, তার ডিভোর্স, তার এখনকার কাজের ব্যস্ততা সবকিছু নিয়েই অনেকক্ষণ কথা হয় ধানমন্ডির ইয়েলো ক্যাফেতে। ১টার দিকে তার নিকেতনের বাসা থেকে আসেন সেখানে স্পর্শীয়া। তার হাতে খালেদ হোসেইনির বিখ্যাত বই ‘আ থাউজেন্ড স্প্লেন্ডিড সানস’। ঢুকেই বললেন- ‘ছোটবেলা থেকেই বই পড়ার অভ্যাস আমার। ঢাকার জ্যামে বসে বসে ঝিমানোর চেয়ে বই পড়লে সময়টা উপভোগ করা যায়।’

    একটা কিছু খাওয়ার আগে ফটোগ্রাফার বললেন, খাবার আসার আগে কিছু ছবি তোলা যাক। স্পর্শীয়াও সায় দিয়ে মুচকি হেসে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে গেলেন।একটু পর শুরু হলো তার ইন্টারভিউ পর্ব- তার কিছু অংশ থাকলো আজ। বাকিটা নিউজজি২৪ বিনোদনের পাঠকরা পাবেন পর্যায়ক্রমে… শেখ মনজু

    webnewsdesign.com

    প্রশ্ন :আপনার ডিভোর্স হয়েছে শুনলাম…

    স্পর্শীয়া : হ্যাঁ। ভাবছিলাম এসব নিয়ে এখনই কোনো কথা বলব না। শুনেই যখন ফেলেছেন তখন বলি-

    বিয়ের আগে রাফসানের সঙ্গে আমার কোনো প্রেম ছিল না। যেটা আসলে সবাই লিখছে ওর সঙ্গে আমার প্রেমের বিয়ে অ্যান্ড অল- ওসব সত্যি না একেবারেই। মাত্র ৩ মাসের পরিচয়ে আমরা বিয়ে করেছি। ওর সঙ্গে পরিচয়ের আগে আমার একটা রিলেশনশিপ ছিল। সেটা ২০১৫ সালের কথা। ওর সঙ্গে বিয়ের ৩ মাস আগে ওই সময় আমার ব্রেকআপ হয়ে যায়। ব্রেকআপের পর আমি খুবই ভেঙ্গে পড়ি। অ্যান্ড তখন আই ওয়ান্টেড টু গেট ম্যারিড টু গেট ওভার উইথ ইট। সেই মুহূর্তেই ওর সঙ্গে আমার পরিচয়। তখন ওর বাসা থেকেই আমাকে বিয়ের প্রপোজাল দেয়। এবং বিয়েটা সম্পূর্ণ ওর ফ্যামিলি এবং ওর মায়ের জন্য করা। ওর ফ্যামিলি খুবই ভালো। আমাদের বিয়ে হয় ২০১৫-এর ১ অক্টোবর। বিয়ের পর আমরা ঠিক ১ বছর একসঙ্গে থাকি। কিন্তু এরপর আমি আর থাকতে পারছিলাম না। আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছিলো না ওর সঙ্গে থাকা।

    প্রশ্ন :কেন সেটা?

    স্পর্শীয়া : কেন যদি বলতে যাই তবে অনেক কথা বলতে হবে, সেটা আমি চাই না। সো আমি ‘কেন’টা বলতে চাই না। অফকোর্স রিজন ছিল। কারণ একটা মেয়ে কখনো এমনি এমনি ঘর ভাঙবে না। আমি বাধ্য হয়েই আসলে ডিভোর্সের ডিসিশন নিয়েছি। ২০১৬-এর অক্টোবর পর্যন্ত আমরা একসঙ্গে ছিলাম। নভেম্বরেই আই টুক দ্য ডিসিশন যে আমি ডিভোর্স চাই। দ্যান উই গট সেপারেটেড। এর পরেও আমাদের আসা যাওয়া ছিল। ও মাঝে মাঝেই বাসায় এসে দেখা করে যেত। কিন্তু আমরা নভেম্বর থেকেই একসঙ্গে থাকতাম না। ডিভোর্সের কাগজপত্র তখন রেডি হচ্ছিলো। এরপর এ বছরের আগস্টে মানে গতমাসে আমরা অফিশিয়ালি ডিভোর্স পেপারে সাইন করি।

    আমি আসলে চাচ্ছিলাম না আমাদের নিয়ে কেউ কথা বলুক, কারণ আমাদের বিয়ের কথা মানুষ আসলে ভুলেও গিয়েছিল আই গেস। কেউই চায় না যে, তার পার্সোনাল বিষয় নিয়ে সবাই এভাবে কথা বলুক। কিন্তু যেহেতু রাফসান অলরেডি নিউজ করে ফেলছে, সে কারণেই আমাকে বলতে হচ্ছে এবং আমি চাচ্ছি- এখন আমার কথাগুলো লিখুন। অথচ ২১ সেপ্টেম্বর যখন আমি আপনাকে আমাদের ডিভোর্স নিয়ে বলেছিলাম, তখন আমি নিজেই অফ দ্য রেকর্ড রাখতে বলেছি। কারণ আমি এসব নিয়ে এখনই পাবলিক করতে চাইনি। তবে এখন আমাকে বলতে হচ্ছে এবং আমার বক্তব্য আপনি লিখে দিতে পারেন। ডিভোর্সের অবশ্যই অনেকগুলো কারণ ছিল কিন্তু আমি কারণগুলো বলতে চাই না।

    প্রশ্ন : ও কারণগুলো কী বলছে?

    স্পর্শীয়া : ও কোনো কারণ বলছে না। যেহেতু ও কোনো কারণ বলছে না, তাই আমিও কোনো নির্দিষ্ট কারণ বলে ঝামেলা করতে চাই না। আমি এখানেই সব শেষ করতে চাই। আমি অলরেডি অনেককিছু ফেস করেছি। এসব নিয়ে আমার আর কোনো কিছু ফেস করার মতো শক্তি অথবা ধৈর্য কোনোটাই নাই। তবে এতটুকু বলব যে, আমি বাধ্য হয়েছিলাম ডিভোর্সের ডিসিশন নিতে।

    প্রশ্ন : রাফসান একজন তৃতীয় ব্যক্তির কথা বলছেন কারণ হিসেবে…

    স্পর্শীয়া : রাফসান যেই তৃতীয় ব্যক্তির কথা বলছে, বা ও যে বলছে আমাদের দুজনের মধ্যে কোনো সমস্যা ছিল না, তৃতীয় ব্যক্তির কারণে ঘর ভেঙ্গেছে- এটা একদম মিথ্যা কথা। এবং ও ‘তৃতীয় ব্যক্তি’ বলে যাকে বুঝাচ্ছে সে আমার মা। ওর ধারণা আমার মা’র জন্য ঘর ভেঙ্গেছে। কিন্তু আমি বোল্ডলি বলছি আমার মা’র জন্য আমাদের ঘর ভাঙ্গে নাই। ওর আর আমার মধ্যে যথেষ্ট পরিমাণে ঝামেলা ছিল।

    প্রশ্ন : তো আপনি সেই ঝামেলাগুলোর কথা বলতে চাচ্ছেন না এখন?

    স্পর্শীয়া : না আসলে আমি চুলাচুলি করতে চাই না। আমি সম্মানের সাথেই সম্পর্কটা শেষ করেছি। বাকি জীবন ব্যাপারটাকে সম্মানের সাথে রাখতে চাই। আমি চাই না ওর সঙ্গে কখনো রাস্তায় দেখা হলে ও আমাকে গালি দিক কিংবা আমি ওকে গালি দিই। যেটা শেষ হয়ে গেছে সেটা শেষ। ওটা নিয়ে ঝগড়াঝাটি, টানাহেঁচড়া, একে অপরকে ব্লেইম করা, আমি এটা চাই না। নিউজজি২৪

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
    যুবলীগে স্থান পাবে ত্যাগী নেতারা – কেন্দ্রীয় সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল
    যুবলীগে স্থান পাবে ত্যাগী নেতারা – কেন্দ্রীয় সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল