• শিরোনাম

    খাজা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরীর ওরস শুরু হবে ৫ জানুয়ারি

    | ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ

    খাজা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরীর ওরস শুরু হবে ৫ জানুয়ারি

    খাজা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরীর ওরস শুরু হবে ৫ জানুয়ারি
    খাজা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরীর ওরস শুরু হবে ৫ জানুয়ারি
    চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

    চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা

    উপমহাদেশের প্রখ্যাত ধর্মীয় নেতা, ১২ পীর আওলীয়ার খলিফা, ওলিয়ে-কামেল সিরাজগঞ্জের হযরত শাহ্ সুফি খাজা বাবা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরী (রঃ)-এর ১০৩তম বাত্সরিক ওরশ আগামী ২০১৮ সালের ৫ জানুয়ারি শুরু হবে। তিন দিনব্যাপী ওরসের ৭ জানুয়ারি রবিবার আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে। এ উপলক্ষে সারাদেশ তথা ভারতের আসাম হতে প্রায় ১৫ লক্ষাধিক মানুষের আগমনে মুখরিত হবে এলাকা। তাই দরবার শরীফ কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন আগে থেকেই বিশেষ প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। যার শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে দরবার শরীফ তথা পুরো এনায়েতপুর জুড়ে।
    সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রথমবার ১৯১৫ সালে তত্কালীন দরবার শরীফের গদ্দিনশীন হুজুর পাক হযরত খাজা বাবা ইউনুছ আলী (রঃ) তার কয়েকজন ভক্তদের সঙ্গে পরামর্শক্রমে ওরস করার জন্য সিদ্ধান্ত নেয়। সে বছর স্বল্প পরিসরে কয়েকশ’ অনুসারী নিয়ে শুরু করা হয় বাত্সরিক ওরস।
    সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ব শান্তি মঞ্জিল সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর পাক দরবার শরীফকে সাজানো হচ্ছে চমকপ্রদ বর্ণিল সাজে। এনায়েতপুর-সিরাজগঞ্জ সড়কে করা হয়েছে বেশ কয়েকটি বিশাল আকৃতির দৃষ্টিনন্দন তোরণ ও দরবারে প্রবেশ মুখে তিন কিলোমটার জুড়ে আলোকসজ্জা। যা অতীতের সব বর্ণাঢ্যতা ছাপিয়ে গিয়েছে। এবারো প্রায় চার শতাধিক মানুষ গত দুই মাস আগে থেকেই দরবার শরীফের মাজার, মসজিদ, গদ্দিনিশিন হুজুরপাকের বাড়ি, অফিস ও আশপাশের এলাকায় রঙ ও বিদ্যুতের ব্যবস্থা করছে। এছাড়া ওজু-গোসলের জন্য পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, খাবার মাঠ সংস্কার, লাখ-লাখ নারী-পুরুষ জাকেরদের থাকা-খাওয়ার আলাদা ব্যবস্থা হচ্ছে। সুবিশাল খাবার মাঠটিতে একসঙ্গে এক বৈঠকে ১৫ হাজার মানুষ খেতে পারবে। চারটি পাকশালায় ২০০টির মতো চুলায় চলবে সর্বোক্ষণ রান্নার কাজ। এতে ৫ শতাধিক বাবুর্চি স্বেচ্ছাশ্রমে রান্নার কাজে নিয়োজিত থাকবেন। খাবার পরিবেশনে লক্ষাধিক মাটির থালার সানকি রাখা হয়েছে প্রস্তুত।
    আশা প্রকাশ করা হচ্ছে, এ বছর রেকর্ড সংখ্যক ভক্তদের আগমন ঘটবে এই ওরস শরীফে। এ ব্যাপারে মাজার শরীফ কর্তৃপক্ষের হামিদুল হক, মাওলানা আব্দুল আওয়াল, মাহফুজুর রহমান (বাবলু), আনছার কমান্ডার আনিছুর রহমান ও লিটন সরকার বলেন, এবার শীতের প্রকোপ কম থাকায় জাকেরদের আগমন বেশি হবে। তাতে প্রায় ১৫ লক্ষাধিক ভক্তবৃন্দের আগমন ঘটবে। যাদের জন্য সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
    এছাড়া সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষে থেকে প্রতি বছরের ন্যায় এ সমস্ত আগত ভক্তদের সার্বিক নিরাপত্তা প্রদানে নেওয়া হবে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পাশাপাশি দরবার শরীফে নিয়োজিত চৌকস আনসারাও এ কাজে অংশগ্রহণ করবে। এনায়েতপুর থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস বলেন, জাকেরদের সার্বিক নিরাপত্তা মনিটারিং এর জন্য মাজারের উল্লেখযোগ্য স্থান এবং চারটি গেটে বসানো হবে অন্তত অর্ধশত সিসি ক্যামেরা। পাশাপাশি নিরাপত্তায় অংশ নেবে র্যাব, পুলিশ, আনসার, ডিবি পুলিশ এবং দরবার শরীফের নিজস্ব মোজাদ্দেদীয়া আনসারসহ ছয় শতাধিক নিরাপত্তা কর্মী।
    আগামী ৭ জানুয়ারি রবিবার সকাল ৯টায় দরবার শরীফের বর্তমান গদ্দিনিশীন হুজুর পাক হযরত খাজা কামাল উদ্দিন নুহু মিয়ার আখেরি মোনাজাত পরিচালনার মাধ্যমে বিশ্ব মানবতার মঙ্গল কামনা করে এই ধর্মীয় মহাসমাবেশের সমাপ্তি ঘটবে।

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন