• শিরোনাম

    আসছে জাতীয় নির্বাচন, বাড়ছে আন্দোলন

    | ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৭:০২ পূর্বাহ্ণ

    আসছে জাতীয় নির্বাচন, বাড়ছে আন্দোলন

    আসছে জাতীয় নির্বাচন, বাড়ছে আন্দোলন

     নিজস্ব প্রতিবেদক

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে বিভিন্ন পেশাজীবী ও রাজনৈতিক দলের আখের গোছানোর দাবির আন্দোলন।

    ধারণা করা হচ্ছে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর অথবা জানুয়ারি যখনই জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান হোক তার আগ পর্যন্ত নানা কৌশলে বেতন বাড়ানো, চাকরি স্থায়ী, এমপিওভুক্তিসহ নানা সমস্যার কথা তুলে ধরে দাবি আদায়ে পেশাজীবীরা আন্দোলন করবেন।
    শুধু পেশাজীবীরাই নন, রাজনৈতিক দলগুলোও আন্দোলন করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। বিশেষ করে বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোট।
    সহায়ক বা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে হতে পারে আন্দোলন। রাজনৈতিক ও পেশাজীবী অধিকার আন্দোলন ছাড়াও একাদশ নির্বাচনের আগে এলাকার নানা সমস্যা ও অন্যান্য বিষয়ভিত্তিক আন্দোলনও বাড়তে পারে সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে। ফলে ধারণা করা হচ্ছে ২০১৮ সাল হবে আন্দোলনের বছর।
    এভাবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ মুহূর্তে বিভিন্ন আন্দোলন অতীতেও হওয়ার নজির রয়েছে। আন্দোলনকারীদের ধারণা পুনরায় ক্ষমতায় আসার জন্য সরকার দাবি পূরণে অন্যসময়ের তুলনায় নমনীয় থাকে এই সময়ে।
    আর তাতে সহজে এবং কম সময়ে দাবি পূরণ হয়। এই উদ্দেশে চলতি সপ্তাহে প্রথম আন্দোলন শুরু করেছিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা। বেতন বাড়ানোর দাবিতে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক্ষকদের ডাকা আমরণ অনশন স্থগিত হলেও সরকার অনেকটাই নমনীয় হয়েছে এবং তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাইছে।
    এদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের আন্দোলন শেষ হতে না হতেই গতকাল থেকে শুরু হয়েছে এমপিওভুক্তির দাবিতে নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের আন্দোলন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষক-কর্মচারীরা জড়ো হয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন। দাবি আদায় না হলে তারা অনশন কর্মসূচির দিকেই যাবেন বলে হুমকি দিয়েছেন।
    পাইপলাইনে আছে নিবন্ধনধারী শিক্ষকদের চাকরি বঞ্চনা ও স্কুল-কলেজ জাতীয়করণের দাবির আন্দোলন। শিক্ষকরা ছাড়াও বিভিন্ন পেশার মানুষ বিভিন্ন ইস্যুতে প্রতিদিনই জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন, অবস্থান কর্মসূচি ও সমাবেশ করছে।
    বলা যায়, সরকারের শেষ সময়ে তা বেড়েছে। তবে এসব আন্দোলনের মধ্যে রাজপথ উত্তপ্ত হওয়ার মতো আন্দোলন হবে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর ডাকে যদি সরকারবিরোধী আন্দোলন হয়। সেটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনার জন্যই হোক বা সহায়ক সরকার চাওয়াই হোক।
    জানা গেছে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সহায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনসহ বাকি ৫টি সিটি করপোরেশন নির্বাচনসহ জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি একসঙ্গে চালানোর জন্য নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

    Leave a comment

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন
    হাজীগঞ্জে ছোট বোনের হাতে বড় বোন খুন